জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মেলন শুরু

spot_img

সম্পর্কিত আর্টিকেল

৯ টাকা দেনমোহরে বিয়ের পিঁড়িতে অভিনেত্রী চমক

শোবিজ প্রতিবেদন: মাত্র ৯ টাকা দেনমোহরে বিয়ের পিঁড়িতে বসেন...

জটিল রোগে আক্রান্ত তাহসান দিলেন দুঃসংবাদ

গুরুতর জটিল রোগে আক্রান্ত দেশের জনপ্রিয় গায়ক, সুরকার, অভিনেতা...

সালমান মুক্তাদির হাসপাতালে

দেশের জনপ্রিয় ইউটিউবার ও অভিনেতা সালমান মুক্তাদির স্বাস্থ্য পরীক্ষার...

মোশাররফ করিমকে নিয়ে ‌‘আক্কেলগঞ্জ হোম সার্ভিস’

মোশাররফ করিমকে নিয়ে তৈরি হয়েছে টিভি ধারাবাহিক ‘আক্কেলগঞ্জ হোম...

বিনোদন প্রতিবেদক
শিল্পকলা একাডেমিতে শুরু হলো তিনদিনের জাতীয় রবীন্দ্র রবীন্দ্রসংগীত সম্মেলন।
জাতীয় রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের আয়োজনে শুক্রবার সকালে একাডেমির জাতীয় নাট্যশালার মূল মিলনায়তনে এই সম্মেলনের উদ্বোধন করেন নাট্যব্যক্তিত্ব রামেন্দু মজুমদার।
ইমিরেটাস প্রফেসর ড.আতিউর রহমানের সভাপতিত্বে উদ্বোধনী আনুষ্ঠানিকতায় স্বাগত বক্তৃতা করেন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শর্মিলা বন্দ্যোপাধ্যায়।
উদ্বোধনকালে রামেন্দু মজুমদার বলেন, নিবেদিত প্রাণের শিল্পী জাহিদুর রহিমকে স্মরণ করার সূত্র ধরে সূচনা হয়েছিল রবীন্দ্রসঙ্গীত সম্মিলন পরিষদের। আজ এটি দেশের রবীন্দ্রসংগীত চর্চার শুদ্ধ প্রতিষ্ঠান। প্রতিবছর এই বার্ষিক অধিবেশনের মধ্য দিয়ে দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের নবীন প্রতিভাদের সামনে নিয়ে আসা হয়। আবার ঢাকা থেকে শিক্ষকেরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় গিয়েও শিক্ষার্থীদের প্রশিক্ষণ দেন। এই কাজটি শুরু করেছিলেন বাংলাদেশের অন্যতম বিশেষ রবীন্দ্রসংগীতশিল্পী প্রয়াত ওয়াহিদুল হক।
উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে হকের স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানান রামেন্দু মজুমদার।
শর্মিলা বন্দোপাধ্যায় বলেন, আজ প্রযুক্তির চরম উৎকর্ষের মধ্যে একদিকে বিশ্বব্যাপী কালান্তর ঘটে চলেছে। অন্যদিকে বিশ্বের নানা প্রান্তে চলছে মানবতার চরম লাঞ্ছনা। গাজায় হত্যাযজ্ঞে প্রতিদিন প্রাণ হারাচ্ছে হাজার হাজার মানুষ। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর মানবতার বিপর্যয় নিয়ে যে আর্তি প্রকাশ করেছিলেন, তা থেকে যেন কিছুই শেখা হয়নি।ইমেরিটাস প্রফেসর আতিউর রহমান বলেন, রবীন্দ্রনাথ বলতেন, শিক্ষার পাঠক্রম শিক্ষালয়ের বাইরের জগৎ নিয়েও। তাই স্বদেশের পাশাপাশি গোটা বিশ্বকে বুঝতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।’
এর আগে আগুনের পরশমণি ছোঁয়াও প্রাণে’ গানের সঙ্গে প্রদীপ প্রজ্বলন করা হয়।এরপর ছিলো বোধনসংগীত ‘নিশিদিন ভরসা রাখিস, ওরে মন, হবেই হবে’।
আলোচনা পর্ব শেষে “পরিবেশিত হয় “গীতি–আলেখ্য: সত্যের আনন্দ রূপ এই তো জাগিছে”। এরপর দুপুরের আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় কিশোর বিভাগের চূড়ান্ত প্রতিযোগিতা। প্রথম দিনের সন্ধ্যার আয়োজনে ছিলো রয়েছে প্রদীপ প্রজ্বলন, সংগীতানুষ্ঠান, নৃত্য আলেখ্য।
এবারের সারা দেশ থেকে আসা ৭০০ জনের বেশি শিল্পী অংশ নিচ্ছেন এ আয়োজনে। রবিবার শেষ হবে তিনদিনের এই সম্মেলন।

এখানে বিজ্ঞাপন দিন

spot_img